SKU: 057055056056049055056049057049049052048

বাগগুহা ও রামগড়


Author :
Publisher :
Publication Year : | Pages

গুহার দেয়াল, ছাদ আর থামগুলি সমস্তই এককালে  প্লাস্টার করা বা চুনবালি জলের লেপে মসৃণ করা কাজ (ইংরেজিতে স্টাকো বলে) আর উৎকৃষ্ট, অসীম বৈচিত্র্যপূর্ণ ছবিতে মোড়া ছিল, তা এখনও দেখলে বোঝা যায়। এ কাজের শুধু অজন্তার সঙ্গেই তুলনা চলে। যেমন নকশার বৈচিত্র্য, তুলির বলিষ্ঠ নৈপুণ্য, আলপনার দক্ষতা তেমনি সব রকম প্রাণের বিপুল বৈভব আর উল্লাস, যার মধ্যে শীর্ণ সন্ন্যাসীর রুক্ষতার লেশ মাত্র নেই।

৳ 720

Out of stock

গুহার দেয়াল, ছাদ আর থামগুলি সমস্তই এককালে  প্লাস্টার করা বা চুনবালি জলের লেপে মসৃণ করা কাজ (ইংরেজিতে স্টাকো বলে) আর উৎকৃষ্ট, অসীম বৈচিত্র্যপূর্ণ ছবিতে মোড়া ছিল, তা এখনও দেখলে বোঝা যায়। এ কাজের শুধু অজন্তার সঙ্গেই তুলনা চলে। যেমন নকশার বৈচিত্র্য, তুলির বলিষ্ঠ নৈপুণ্য, আলপনার দক্ষতা তেমনি সব রকম প্রাণের বিপুল বৈভব আর উল্লাস, যার মধ্যে শীর্ণ সন্ন্যাসীর রুক্ষতার লেশ মাত্র নেই। চিত্রের বিষয়েও বৌদ্ধ ধর্মের গোঁড়ামি নেই। আগেই বলেছি বাগ-এ এমন কোনো লিপি নেই যা দেখে তারিখ নির্ণয় করা যায়। তবে আঁকার রীতি আর সাজ সজ্জার ফ্যাশন,- যথা পুরুষের কেশসজ্জা, অথবা স্বচ্ছ, আঁটসাঁট পোশাক – দেখে এটা বলা যায় যে বাগের ছবির সঙ্গেও গুপ্তযুগের শেষ দিকের ভাস্কর্যের বেশ মিল আছে, এবং বাগের কাজ মধ্যযুগের আগের। অন্যপক্ষে এটাই ঠিক যে অজন্তার শেষযুগের কাজের চেয়ে তা প্রাচীন নয়। বোধহয় বাগের চিত্রকে নিরাপদে খ্রীস্টীয় ছয় শতকের মাঝামাঝি থেকে সাত শতকের মাঝামাঝি পর্যন্ত ফেলা যায়। ছবিগুলিতে অনেক নকশাই আছে তাতে কালো আর সাদা রঙের সঙ্গে মেটে সিঁদুর লালের (ইণ্ডিয়ান রেড) রেখা আছে। আবার কিছু কাজ আছে যাতে রঙ ‘অত্যন্ত জ্বল জ্বল’ করছে, নীল, লাল আর হলুদের পরস্পর বিরোধ ঘটানো হয়েছে। দুটি রীতি বোধহয় দুটি ভিন্ন যুগের।

Weight 800 g
Dimensions 8.8 × 10.9 in

There are no reviews yet.

Be the first to review “বাগগুহা ও রামগড়”

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Updating…
  • No products in the cart.
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial